ওয়েস্ট ইন্ডিজের বাংলাদেশ সফর

অপূর্ব দীপ্ত ভৌমিক, হাজী মুহাম্মদ মহসিন সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, CHATTOGRAM, ২২ নভেম্বর, ২০১৮

বাংলাদেশ বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ



জিম্বাবুয়ে সিরিজের অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করে চট্টগ্রাম সিরিজ খেলতে নামবে বাংলাদেশ। অন্যদিকে ভারত সফরে উপমহাদেশের কন্ডিশনকে বোঝার যে সুযোগটুকু পেয়েছে সেটাকেই পুঁজি করে মাঠে নামবে উইন্ডিজ। কন্ডিশনের ককারণে অবশ্য বাংলাদেশকেই এগিয়ে রাখছেন উন্ডিজ ক্যাপ্টেন ক্রেগ ব্রাথওয়েট। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে প্রথম টেস্টে দেখা মেলে এক খেয়ালখুশি বাংলাদেশকে। যেন টেস্টকে টি-টুয়েন্টি বানানোর স্বপ্ন নিয়ে নামছে তারা। উল্টোপাল্টা শট, ভুল শট নির্বচন তো ছিলোই, পাশাপাশি এক পেসারকে খেলানোতে বাংলাদেশের একচোখা নীতির দিকেও আঙ্গুল তুলছিলো সবাই। ফলাফল ১৫১ রানে হার এবং টানা ১৯টি আন্তর্জাতিক ম্যাচ হারা জিম্বাবুয়েকে দেশের বাইরে ৫বছর পর প্রথম টেস্ট জয় উপহার দেওয়া। জিম্বাবুয়ের কোচ লালচাঁদ রাজপুত তো এটাকে দীপাবলির উপহার হিসেবেই নিয়েছেন। তবে তাইজুল ইসলাম যেন ধ্বংসস্তুপের রাজকুমার। দশ উইকেট নিয়ে যেন নীরবে বলছিলেন "আমাকে ওদের সঙ্গে তুলনা কোরোনা"। তবে দ্বিতীয় টেস্টে সব নিন্দুককে বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে দেখা মেলে দাঁতে দাঁত চেপে লড়াই করা মোমিনুল এবং মুশফিককে। মুশফিক তো একমাত্র উইকেট কিপার-ব্যাটসম্যান হিসেবে টেস্টে দুই ডবল সেঞ্চুরিরর রেকর্ডই বানিয়ে ফেলেছেন। প্রথম টেস্টের বদলাটা যেন সুদে-আসুদে পুষিয়ে ফেলেছেন। ২১৮ রানের জয় তো মুখের কথা নয়। এই টেস্ট সিরিজে বাংলাদেশের প্রাপ্তির খাতাটাও বেশ বড়। সাকিব-তামিম ছাড়া টেস্ট জয়, মাহমুদউল্লাহর টেস্ট সেঞ্চুরি, তাইজুলের "ঘূর্ণিঝড়", অলরাউন্ডার মিরাজকে পাওয়া, মুশফিকের রেকর্ড। এই সিরিজে তো আবার বাংলাদেশের ক্রিকেটের "ফার্স্ট বয়" সাকিবকেও পাওয়া যাচ্ছে। সুতরাং দেখা যাক এই প্রাপ্তির খাতাটাকে আরও বড় করতে পারে নাকি বাংলাদেশ। আর বলে রাখি, এই সিরিজ দিয়ে কিন্তু অভিষেক হচ্ছে নাঈম হাসান এবং সাদমান ইসলামের। দেখা যাক টেস্টের এই কঠিন বিশ্বে কতটা জায়গা করতে পারেন ঘরোয়া লিগে দুর্দান্ত পারফর্ম করা এই দু'জন। বাংলাদেশ দল: সাকিব আল হাসান (ক্যাপ্টেন), সৌম্য সরকার, ইমরুল কায়েস, মোহাম্মদ মিঠুন, মোমিনুল হক, মুশফিকুর রহিম, আরিফুল হক, মাহামুদউল্লাহ, মেহেদী হাসান মিরাজ, মোস্তাফিজুর রহমান, তাইজুল ইসলাম, খালেদ আহমেদ, নাঈম হাসান, সাদমান ইসলাম। ওয়েস্ট ইন্ডিজ দল: ক্রেগ ব্রাথওয়েট (ক্যাপ্টেন), সুনিল আম্ব্রিস, দেবেন্দ্র বিশু, রোস্টোন চেজ, শেন ডওরিচ, শ্যানন গ্যাব্রিয়েল, জাহমার হ্যামিল্টন, শিমরন হেটময়ের, শাই হোপ, শেরমন লুইস, কিমো পল, কাইরন পাওয়েল, রেইমন রেইফার, কিমার রোচ, জোমেল ওয়ারিকান শিডিউল: ১ম টেস্ট – নভেম্বর ২২ – চট্টগ্রাম ২য় টেস্ট – নভেম্বর ৩০ – মিরপুর ১ম ওডিআই – ডিসেম্বর ৯ – মিরপুর ২য় ওডিআই – ডিসেম্বর ১১ – মিরপুর ৩য় ওডিআই – ডিসেম্বর ১৪ – সিলেট ১ম টি-টুয়েন্টি– ডিসেম্বর ১৭ – সিলেট ২য় টি-টুয়েন্টি – ডিসেম্বর ২০ – মিরপুর ৩য় টি-টুয়েন্টি– ডিসেম্বর ২২ – মিরপুর






মন্তব্য ( ১ )

মন্তব্য করতে হলে আগে লগ ইন করুন


Md hasan,২৫ নভেম্বর, ২০১৮

Welcom


সর্বশেষ সংবাদ

আরও

বাংলাদেশ বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বাংলাদেশ সফর

অপূর্ব দীপ্ত ভৌমিক, হাজী মুহাম্মদ মহসিন সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, CHATTOGRAM,

২২ নভেম্বর, ২০১৮

জিম্বাবুয়ে সিরিজের অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করে চট্টগ্রাম সিরিজ খেলতে নামবে বাংলাদেশ। অন্যদিকে ভারত সফরে উপমহাদেশের কন্ডিশনকে বোঝার যে সুযোগটুকু পেয়েছে সেটাকেই পুঁজি করে মাঠে নামবে উইন্ডিজ। কন্ডিশনের ককারণে অবশ্য বাংলাদেশকেই এগিয়ে রাখছেন উন্ডিজ ক্যাপ্টেন ক্রেগ ব্রাথওয়েট। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে প্রথম টেস্টে দেখা মেলে এক খেয়ালখুশি বাংলাদেশকে। যেন টেস্টকে টি-টুয়েন্টি বানানোর স্বপ্ন নিয়ে নামছে তারা। উল্টোপাল্টা শট, ভুল শট নির্বচন তো ছিলোই, পাশাপাশি এক পেসারকে খেলানোতে বাংলাদেশের একচোখা নীতির দিকেও আঙ্গুল তুলছিলো সবাই। ফলাফল ১৫১ রানে হার এবং টানা ১৯টি আন্তর্জাতিক ম্যাচ হারা জিম্বাবুয়েকে দেশের বাইরে ৫বছর পর প্রথম টেস্ট জয় উপহার দেওয়া। জিম্বাবুয়ের কোচ লালচাঁদ রাজপুত তো এটাকে দীপাবলির উপহার হিসেবেই নিয়েছেন। তবে তাইজুল ইসলাম যেন ধ্বংসস্তুপের রাজকুমার। দশ উইকেট নিয়ে যেন নীরবে বলছিলেন "আমাকে ওদের সঙ্গে তুলনা কোরোনা"। তবে দ্বিতীয় টেস্টে সব নিন্দুককে বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে দেখা মেলে দাঁতে দাঁত চেপে লড়াই করা মোমিনুল এবং মুশফিককে। মুশফিক তো একমাত্র উইকেট কিপার-ব্যাটসম্যান হিসেবে টেস্টে দুই ডবল সেঞ্চুরিরর রেকর্ডই বানিয়ে ফেলেছেন। প্রথম টেস্টের বদলাটা যেন সুদে-আসুদে পুষিয়ে ফেলেছেন। ২১৮ রানের জয় তো মুখের কথা নয়। এই টেস্ট সিরিজে বাংলাদেশের প্রাপ্তির খাতাটাও বেশ বড়। সাকিব-তামিম ছাড়া টেস্ট জয়, মাহমুদউল্লাহর টেস্ট সেঞ্চুরি, তাইজুলের "ঘূর্ণিঝড়", অলরাউন্ডার মিরাজকে পাওয়া, মুশফিকের রেকর্ড। এই সিরিজে তো আবার বাংলাদেশের ক্রিকেটের "ফার্স্ট বয়" সাকিবকেও পাওয়া যাচ্ছে। সুতরাং দেখা যাক এই প্রাপ্তির খাতাটাকে আরও বড় করতে পারে নাকি বাংলাদেশ। আর বলে রাখি, এই সিরিজ দিয়ে কিন্তু অভিষেক হচ্ছে নাঈম হাসান এবং সাদমান ইসলামের। দেখা যাক টেস্টের এই কঠিন বিশ্বে কতটা জায়গা করতে পারেন ঘরোয়া লিগে দুর্দান্ত পারফর্ম করা এই দু'জন। বাংলাদেশ দল: সাকিব আল হাসান (ক্যাপ্টেন), সৌম্য সরকার, ইমরুল কায়েস, মোহাম্মদ মিঠুন, মোমিনুল হক, মুশফিকুর রহিম, আরিফুল হক, মাহামুদউল্লাহ, মেহেদী হাসান মিরাজ, মোস্তাফিজুর রহমান, তাইজুল ইসলাম, খালেদ আহমেদ, নাঈম হাসান, সাদমান ইসলাম। ওয়েস্ট ইন্ডিজ দল: ক্রেগ ব্রাথওয়েট (ক্যাপ্টেন), সুনিল আম্ব্রিস, দেবেন্দ্র বিশু, রোস্টোন চেজ, শেন ডওরিচ, শ্যানন গ্যাব্রিয়েল, জাহমার হ্যামিল্টন, শিমরন হেটময়ের, শাই হোপ, শেরমন লুইস, কিমো পল, কাইরন পাওয়েল, রেইমন রেইফার, কিমার রোচ, জোমেল ওয়ারিকান শিডিউল: ১ম টেস্ট – নভেম্বর ২২ – চট্টগ্রাম ২য় টেস্ট – নভেম্বর ৩০ – মিরপুর ১ম ওডিআই – ডিসেম্বর ৯ – মিরপুর ২য় ওডিআই – ডিসেম্বর ১১ – মিরপুর ৩য় ওডিআই – ডিসেম্বর ১৪ – সিলেট ১ম টি-টুয়েন্টি– ডিসেম্বর ১৭ – সিলেট ২য় টি-টুয়েন্টি – ডিসেম্বর ২০ – মিরপুর ৩য় টি-টুয়েন্টি– ডিসেম্বর ২২ – মিরপুর

মন্তব্য ( ১ )

মন্তব্য করতে হলে আগে লগ ইন করুন


Md hasan,২৫ নভেম্বর, ২০১৮

Welcom